শনিবার , ২৩ মার্চ ২০১৯ | সকাল ৯:২৮

এইমাত্র পাওয়া:

৥ আমার বাংলা TV: বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসার দাবিতে ১০১ চিকিৎসকের বিবৃতি ৥
৥ আমার বাংলা TV: বিমানের দুর্নীতিবাজদের আমলনামা সচল ৥
৥ আমার বাংলা TV: ইসির কাছে রাষ্ট্রীয় সম্পদ অপচয়ের হিসাব চাইলেন চরমোনাই পীর ৥
৥ আমার বাংলা TV: সাবেক মন্ত্রী মেননের গাড়িতে ধাক্কা দেয়া চালকের ‘লাইসেন্স নেই ৥
৥ আমার বাংলা TV: রাজধানীর নিউমার্কেট এলাকায় অ্যাপার্টমেন্টে আগুন ৥
৥ আমার বাংলা TV: অস্ত্রসহ একটা সুন্দর ছবি তোলাই ছিল বাবার শেষ ইচ্ছা ৥
৥ আমার বাংলা TV: কলকাতায় কালবৈশাখী ঝড়, নিহত ২ ৥
৥ আমার বাংলা TV: ১০ কিলোমিটারে মিলল আনসারের হারিয়ে যাওয়া অস্ত্র ৥
৥ আমার বাংলা TV: ছাত্রলীগের সনাতন ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব দোল পূর্ণিমা ৥
৥ আমার বাংলা TV: আসন পরিবর্তনের কারণ জানতে চাওয়ায় পিস্তল বের করেন পলাশ ৥
৥ আমার বাংলা TV: টয়লেটের ফ্লাশ নষ্ট হওয়ায় ফ্লাইট বাতিল ৥
৥ আমার বাংলা TV: যে কারণে কোন আয়োজন ছাড়াই বিয়ে করছেন মোস্তাফিজ ৥
৥ আমার বাংলা TV: ভোট কেন্দ্রে যেতে মানুষকে অভয় দিলেন এসপি শামসুন্নাহার ৥
৥ আমার বাংলা TV: পুনর্নির্বাচন আদায়ে নতুন কর্মসূচি ঐক্যফ্রন্টের ৥
৥ আমার বাংলা TV: স্বাস্থ্য বিভাগের আফজালের সহযোগীর বিরুদ্ধে দুদকে অভিযোগ ৥
৥ আমার বাংলা TV: ওজোপাডিকোর উদাসীনতায় মৃত্যুঝুঁকিতে অর্ধশত পরিবার ৥
৥ আমার বাংলা TV: চিকিৎসা ক্ষেত্রে অবদানের জন্য সম্মাননা তুলে দিলেন প্রধান বিচারপতি ৥
৥ আমার বাংলা TV: প্রতারক প্রেমিক কলেজছাত্র গ্রেফতার ৥
৥ আমার বাংলা TV: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ডাকসুতে দায়িত্ব গ্রহণের ঘোষণা নুরের ৥
৥ আমার বাংলা TV: আবারো মিথিলাকে বিয়ের প্রস্তাব তাহসানের ৥
৥ আমার বাংলা TV: সিরাজগঞ্জে বৃদ্ধকে পিটিয়ে হত্যা, মা-মেয়ে আটক ৥
৥ আমার বাংলা TV: বাঁশের লাঠি যখন স্কুল বাসের গিয়ার ৥
৥ আমার বাংলা TV: অভিনেত্রী সানি লিওন ‘রাজনীতিতে ৥
৥ আমার বাংলা TV: বিএনপি নেতারা কেউ কাউকে বিশ্বাস করে না : তোফায়েল আহমেদ ৥
৥ আমার বাংলা TV: মুখ খুললেন ওসামা বিন লাদেনের মা, জানালেন চমকপ্রদ কিছু তথ্য ৥
৥ আমার বাংলা TV: নিউজিল্যান্ডে রাষ্ট্রীয়ভাবে জুমার আযান সম্প্রচার, নিরবতা পালন ৥
৥ আমার বাংলা TV: খুতবায় নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চ মসজিদের ইমাম যা বললেন ৥
৥ আমার বাংলা TV: ডেইলি স্টারের সাংবাদিক আনোয়ারুল হক আর নেই ৥
৥ আমার বাংলা TV: আইপিএলে সাকিবের দলের খেলার সূচি ৥
৥ আমার বাংলা TV: আওয়ামী লীগে ছিলাম, এখনও আছি: সুলতান মনসুর ৥
৥ আমার বাংলা TV: অপারেশনের পর শংকামুক্ত সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ৥
৥ আমার বাংলা TV: জাপানে আইক্যানের ইভেন্টে বাংলাদেশের ইনোভেডিয়াস ৥
৥ আমার বাংলা TV: টাঙ্গাইলে বাহারি স্টাইলে চুল কাটালে ৪০ হাজার টাকা জরিমানা ৥
৥ আমার বাংলা TV: নিউজিল্যান্ডে হামলায় নিহত ড. সামাদ ও হোসনে আরার দাফন ৥
৥ আমার বাংলা TV: ডেমরায় সওজের ৫০ কোটি টাকার সম্পত্তি দখল ৥
৥ আমার বাংলা TV: আন্দোলনের কর্মসূচি নির্ধারণে আজ বসছেন ফ্রন্টের শীর্ষ নেতারা ৥
৥ আমার বাংলা TV: কক্সবাজারে পৃথক ঘটনায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ৩ জন নিহত ৥
৥ আমার বাংলা TV: উন্নয়ন কাজে যেন মানুষের ক্ষতি না হয়: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ৥
৥ আমার বাংলা TV: বিএনপি সঠিক পথেই চলছে: আমীর খসরু ৥
৥ আমার বাংলা TV: সাতক্ষীরায় বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থকদের আটক, থানা ঘেরাও করে বিক্ষোভ ৥

রিজার্ভ চুরির পুরো অর্থ কবে নাগাদ ফেরত পাওয়া যাবে।

আমার বাংলা TV: বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির পুরো অর্থ কবে নাগাদ ফেরত পাওয়া যাবে, তা নিশ্চিত করে বলা মুশকিল। সরকারের সংশ্নিষ্ট মন্ত্রী ও কর্মকর্তারা অবশ্য দৃঢ়তার সঙ্গে বারবার বলেছেন যে অবশ্যই রিজার্ভের অর্থ ফেরত আনা হবে। গতকাল বৃহস্পতিবার ফিলিপাইনের ব্যাংক আরসিবিসির সাবেক শাখা ব্যবস্থাপক মায়া সান্তোস দেগুইতোর বিরুদ্ধে সে দেশের আদালতের এক রায়ের ফলে রিজার্ভের অর্থ ফেরত পাওয়ার সম্ভাবনা আরও বেড়েছে বলে মনে করছে বাংলাদেশ ব্যাংক। ফিলিপাইনের এ ব্যাংকের মাধ্যমেই রিজার্ভের অর্থ অবৈধভাবে হ্যাকাররা তুলে নেওয়ার সুযোগ পায়।
ফিলিপাইনের আদালত মায়াকে ৩২ থেকে ৫৬ বছরের কারাদণ্ড ও ১০ কোটি ৯০ লাখ ডলার জরিমানার আদেশ দিয়েছেন। বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্নিষ্টরা বলছেন, এই সাজার মধ্য দিয়ে অর্থ পাচারের ঘটনায় মায়া আইনগতভাবে দোষী সাব্যস্ত হলেন। আরসিবিসিও তার দায় এড়াতে পারবে না। বাংলাদেশের রিজার্ভ চুরির ঘটনায় এই প্রথম আদালত কাউকে সাজা দিলেন। এতে বাংলাদেশের অর্থ ফেরত পাওয়ার বিষয়টি ত্বরান্বিত হবে। আর আরসিবিসিও অর্থ ফেরত দিতে অস্বীকৃতি জানাতে পারবে না। এখন চুরি হওয়া অর্থ আরসিবিসিকে পরিশোধ করা উচিত বলে মনে করেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্নিষ্টরা।২০১৬ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক অব নিউইয়র্কে রক্ষিত বাংলাদেশ ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট থেকে ভুয়া পেমেন্ট অর্ডারের বিপরীতে ১০ কোটি ১০ লাখ ডলার চুরি হয়। এর মধ্যে শ্রীলংকায় যাওয়া দুই কোটি ডলার বিতরণ হওয়ার আগেই ফেরত পায় বাংলাদেশ। আর ফিলিপাইনে যাওয়া আট কোটি ১০ লাখ ডলারের মধ্যে প্রায় দেড় কোটি ডলার ফেরত এলেও ছয় কোটি ৬০ লাখ ডলার ফেরত পাওয়া যায়নি। ফেরত না পাওয়া অর্থের মধ্যে ১৪ মিলিয়ন ডলার ছাড়া বাকি অর্থের খোঁজ পাওয়া গেছে, যার বড় অংশই দেশটির আদালতের নির্দেশে ফ্রিজ হয়ে আছে। এর আগে ফিলিপাইনের আদালতের নির্দেশে প্রায় দেড় কোটি ডলার ফেরত পায় বাংলাদেশ। এর পর থেকে পুরো অর্থ ফেরত পাওয়ার অধিকার প্রতিষ্ঠা হয় বলে মনে করেন বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তারা।

বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ থেকে অর্থ চুরির ঘটনার দুই বছরের বেশি সময় পার হলেও মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করা যায়নি। এমনকি চুরি হওয়া অর্থের বড় অংশ এখনও ফেরত আনা সম্ভব হয়নি। শিগগিরই বাকি অর্থ ফেরত পাওয়া যাবে- এমনটি মনে করছেন না ঘটনার তদন্তকারী সংস্থা সিআইডির কর্মকর্তারা। তবে তারা জানান, অর্থ উদ্ধারে বাংলাদেশের প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। অর্থ ফেরত আনার ব্যাপারে মামলা করার প্রক্রিয়া নিয়ে এগোচ্ছে বাংলাদেশ।বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক মো. সিরাজুল ইসলাম গতকাল সমকালকে বলেন, রিজার্ভের অর্থ উদ্ধারের জন্য আগামী ৪ ফেব্রুয়ারির আগেই মামলা করতে হবে। মামলার রায়ের পর কবে নাগাদ অর্থ ফেরত পাওয়া যাবে, তা বোঝা যাবে বলে তিনি জানান। মামলার ব্যাপারে আলোচনা করতে আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিবের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করছে।
এ মামলার তদন্ত তদারক কর্মকর্তা সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার মোল্যা নজরুল ইসলাম গতকাল সমকালকে বলেন, রিজার্ভ চুরির মামলার তদন্তে অগ্রগতি রয়েছে। দেশ-বিদেশ থেকে এ ঘটনার ব্যাপারে সংগ্রহ করা হয়েছে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য। মামলার তদন্ত এগিয়ে নিতে ও চার্জশিট দাখিলের ক্ষেত্রে তা কাজে আসবে। তথ্য চেয়ে কয়েকটি দেশকে ‘কোর্ট টু কোর্ট’ চিঠিও দেওয়া হয়েছে। তবে এ চিঠিগুলোর উত্তর এখনও পাওয়া যায়নি।

সিআইডির দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, রিজার্ভ চুরির ঘটনায় জড়িত ও সংশ্নিষ্টদের ব্যাপারে তথ্য জানতে এরই মধ্যে আটটি দেশের আইনি চ্যানেলে চিঠি দেওয়া হয়েছে। দেশগুলো হলো- যুক্তরাষ্ট্র, ভারত, জাপান, চীন, মালয়েশিয়া, শ্রীলংকা, ফিলিপাইন ও বেলজিয়াম। তবে এখনও চিঠির কোনো উত্তর পায়নি সিআইডি। তদন্ত শেষ করতে সংস্থাটি অন্তত ২০ বার আদালতের কাছে সময় নিয়েছে। তদন্ত যে শিগগিরই শেষ হচ্ছে না, এটা নিশ্চিত।
বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ থেকে অর্থ চুরির ঘটনায় অ্যান্টিমানি লন্ডারিং কাউন্সিলের দায়ের করা মামলায় ফিলিপাইনের আদালতে এরই মধ্যে সাক্ষ্য দিয়েছেন বাংলাদেশের দুই কর্মকর্তা। তারা হলেন সিআইডির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রায়হান উদ্দিন ও ফরেনসিক বিশেষজ্ঞ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জালাল উদ্দিন ফাহিম। এ ছাড়া সুইফট কর্তৃপক্ষ ও অন্তর্জাতিক পুলিশ সংস্থা ইন্টারপোলের সঙ্গে একাধিক দফায় বৈঠক করেছে সিআইডি।
২০১৬ সালে রিজার্ভ চুরির ঘটনা জানাজানি হলে দেশ-বিদেশে তোলপাড় শুরু হয়। ওই বছরের ১৫ মার্চ বাংলাদেশ ব্যাংকের তৎকালীন যুগ্ম পরিচালক যুবায়ের বিন হুদা বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামিদের বিরুদ্ধে মতিঝিল থানায় মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলাটির তদন্ত করছে সিআইডি।

এদিকে, এফবিআই পৃথকভাবে এ ঘটনার তদন্ত করছে। সূত্র জানায়, চারটি গ্রুপে বিভক্ত হয়ে দুর্বৃত্তরা বাংলাদেশ ব্যাংকের অর্থ চুরি করে। তারা হলো হ্যাকার, মানি লন্ডার, নেগোশিয়েটর ও ‘ইনসাইডার’। সিআইডি বাংলাদেশ ব্যাংকের শতাধিক কর্মকর্তা-কর্মচারীকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে। তদন্ত-সংশ্নিষ্টরা বলছেন, রিজার্ভ চুরির ঘটনাটি একটি ‘ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম বা আন্তঃদেশীয় অপরাধ’। তাই অনেক দেশের নাগরিক ও সংস্থা জড়িয়ে থাকায় তদন্ত এগিয়ে নিতেও নানা ঝক্কি-ঝামেলা সামলাতে হচ্ছে।যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআইর এক তদন্তে উঠে আসে, হ্যাকিংয়ের মাধ্যমে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভের অর্থ চুরির ঘটনায় উত্তর কোরিয়ার নাগরিক পার্ক জিন হিউক জড়িত। গত বছরের সেপ্টেম্বরে যুক্তরাষ্ট্রের একটি আদালতে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়। সংশ্নিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, এফবিআইর তদন্তে হ্যাকিং ছাড়াও চুরির সঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের কারও যে সম্পৃক্ততা নেই, সেটিও পরিস্কার হয়। সংশ্নিষ্টরা জানান, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ থেকে চুরি করে ফিলিপাইনে নেওয়া অর্থ ফেরতের জন্য ফিলিপাইনের আদালতে একাধিক মামলা চলমান রয়েছে। এসব মামলায় আরসিবিসির আইনজীবীরা বরাবরই বলে আসছিলেন- হ্যাকিং নয়, বাংলাদেশ ব্যাংকসহ বিভিন্ন পক্ষের যোগসাজশে পেমেন্ট অর্ডারের বিপরীতে রিজাল ব্যাংকে টাকা ঢুকেছিল। নিয়ম মেনে শাখা থেকে যা ছাড় করা হয়। আর বাংলাদেশের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছিল, হ্যাকিংয়ের মাধ্যমেই এসব অর্থ চুরি করা হয়েছে। যেখানে রিজাল ব্যাংকের দায় রয়েছে। ফলে চুরির অর্থ রিজাল ব্যাংকই বাংলাদেশকে ফেরত দিতে হবে। 

জানা গেছে, অর্থ উদ্ধার প্রক্রিয়া জোরদার করতে আরসিবিসির বিরুদ্ধে মামলার বিষয়ে আলোচনার জন্য গত ৮ জানুয়ারি আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব মো. আসাদুল ইসলামের নেতৃত্বে যুক্তরাষ্ট্রে গেছে প্রতিনিধি দল। বাংলাদেশের প্রতিনিধি দলে আরও আছেন বাংলাদেশ ফিন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের (বিএফআইইউ) প্রধান আবু হেনা মোহা. রাজী হাসান, বিএফআইইউর উপদেষ্টা দেবপ্রসাদ দেবনাথ ও যুগ্ম পরিচালক আবদুর রব। গতকাল প্রতিনিধি দল মামলার বিষয়ে আইনি সহায়তার জন্য যুক্তরাষ্ট্রে নিয়োগ দেওয়া দুই ল ফার্মের সঙ্গে বৈঠক করেছে। আজ শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সঙ্গে বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। যেহেতু আন্তর্জাতিক বার্তা প্রেরণের মাধ্যম সুইফট সিস্টেম হ্যাক করে যুক্তরাষ্ট্রে ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক অব নিউইয়র্কে রক্ষিত হিসাব থেকে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভের অর্থ চুরি হয়, এ জন্য মামলার সময় তাদেরও সঙ্গে রাখতে চায় বাংলাদেশ।
রিজার্ভ চুরির বিষয়ে জানতে চাইলে গতকাল অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল সাংবাদিকদের বলেন, এ বিষয়ে ফিলিপাইনে সিদ্ধান্ত হয়েছে। সিদ্ধান্তের বিস্তারিত পাওয়ার পর তিনি মন্তব্য করবেন। রিজার্ভ চুরির ঘটনায় সাবেক গভর্নর মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিনের প্রতিবেদন প্রকাশের বিষয়ে বলেন, এ বিষয়ে আমরা কোথায় আছি, আগে জানতে হবে। সাবেক অর্থমন্ত্রী উদ্যোগ নিয়ে এ বিষয়ে এগিয়ে গিয়েছিলেন। তা জানার পর তিনি জানাতে পারবেন।

জানা গেছে, রিজার্ভ চুরির ঘটনায় এখন পর্যন্ত অন্তত ১৫ বিদেশি নাগরিকের জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়া গেছে। এ মামলায় তারা আসামি হবেন। এ ছাড়া প্রতিষ্ঠান হিসেবে আরসিবিসি, ইস্টার্ন হাওয়াই লেইসার, লুমবেরিং, সোলারিন, সালিকা ফাউন্ডেশন অভিযুক্ত হবে। এখন পর্যন্ত রিজার্ভ থেকে অর্থ চুরির ঘটনায় বিভিন্ন পর্যায়ে জড়িতদের অনেকের নাম শনাক্ত করা হয়েছে। তারা হলেন- জাপানের সাসাকিম তাকাশি, জয়দেবা, আরসিবিসির জুপিটার শাখা ব্যবস্থাপক মায়া সান্তোস দেগুইতো, এনজেলা তেরেস, মাইকেল ফ্রান্সিসকো ক্রুজ, জেসি ক্রিস্টোফার লাগোরাস, আলফ্রেড ভারগারা, এনরিকো তায়েদ্রো ভাসকুয়েজ, কিম ওং, স্লুইড বাতিস্তা, ফিলিপাইনের ব্যবসায়ী উইলিয়াস গো সো, শ্রীলংকার এনজিও শালিকা ফাউন্ডেশনের গামাজ শালিকা পেরেরা, সানজেবা টিসা বান্দরা, শিরানি ধাম্মিকা ফার্নান্দো, ডন প্রসাদ রোহিতা, নিশান্থা নালাকা, ওয়ালাকুরুয়ারাচ্চি প্রমুখ। তবে মূল হ্যাকারদের এখন শনাক্ত করা সম্ভব হয়নি। তবে ঘটনার সময় হ্যাকারদের কেউ কেউ ফিলিপাইনে অবস্থান করছিল বলে তদন্তে উঠে এসেছে।যায়নি। এটা হয়তো আমাদের সদিচ্ছার অভাব অথবা মেধা ও যোগ্যতার ঘাটতির কারণে হতে পারে। এ ধরনের অর্থ ফেরত পাওয়া এখন কঠিনসাধ্য কোনো বিষয় নয়। কারণ, এ ঘটনায় কারা জড়িত- তার একটি পার্ট আমাদের জানা। অর্থ ফেরত আনতে আরও কার্যকর ও সক্রিয় ভূমিকা দেশবাসী দেখতে চায়।

আমার বাংলা নিউজ /১১ জনুয়ারি / ২০১৯

 

About amarbangla

amarbanglanews

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com