শনিবার , ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ | সকাল ৮:১১

এইমাত্র পাওয়া:

৥ আমার বাংলা TV: পুরান ঢাকার চকবাজারে লাশ হস্তান্তর শুরু, ৪১ জনের পরিচয় শনাক্ত ৥
৥ আমার বাংলা TV: রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ,ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শোক ৥
৥ আমার বাংলা TV: কক্সবাজার টেকনাফে র‌্যাব ও বিজিবির সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ২ ৥
৥ আমার বাংলা TV: ২২ লাশ শনাক্তে ডিএনএ টেস্ট হবে স্বজনদের ৥
৥ আমার বাংলা TV: রাজধানী অগ্নিনির্বাপক ব্যবস্থা ছিল না ভবনে: ডিএসসিসির তদন্ত দল চকবাজারে অগ্নিকাণ্ড ৥
৥ আমার বাংলা TV: ময়মনসিংহে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে মাদক ব্যবসায়ী’ নিহত ৥
৥ আমার বাংলা TV: লাশের মিছিল গোটা দেশকে করেছে শোকার্ত ৥
৥ আমার বাংলা TV: রাসায়নিক বিক্রেতাদের আইনের আওতায় আনা হবে: ওবায়দুল কাদের ৥
৥ আমার বাংলা TV: পুরান ঢাকায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড, মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৭৮ ৥

জিজ্ঞাসা ও জবাব।

আমার বাংলা TV: প্রশ্ন : ক. যে ব্যক্তির উপার্জন হালাল-হারাম মিশ্রিত হয় আর সে কাউকে কোনো কিছু হাদিয়া দেওয়ার সময় আমি এ হাদিয়াটি আমার হালাল উপার্জন থেকে দিচ্ছি এ কথা উল্লেখ না করে তাহলে কি এ হাদিয়াটি তার হালাল উপার্জন থেকে দিয়েছে এরূপ ধরে তা গ্রহণ করা এবং ব্যবহার করা যাবেখ. উপর্যুক্ত শ্রেণির ব্যক্তিদের হাদিয়া কেউ কবুল করার পর হাদিয়াগ্রহীতা তা কিছুদিন ব্যবহার করে অথবা ব্যবহার না করেই অন্যকে আবার যদি তা হাদিয়া দিয়ে দেয়, তাহলে দ্বিতীয় ব্যক্তির জন্য এ হাদিয়া গ্রহণ করা জায়েজ হবে কি

উত্তর : ক. হারাম মাল থেকে হাদিয়া দিলে তা গ্রহণ করা জায়েজ হবে না। আর যার উপার্জন হালাল-হারাম মিশ্রিত সে কোনো কিছু হাদিয়া দিলে তা হালাল মাল থেকে দিয়েছে বলে জানা গেলে তা নেওয়া বৈধ হবে। হারাম মাল থেকে দিয়েছে জানা গেলে তা গ্রহণ করা বৈধ হবে না। আর যদি হাদিয়া কোন মাল থেকে দিয়েছে তা জানা না যায় তাহলে এক্ষেত্রে তার অধিকাংশ উপার্জন হালাল হলে ওই হাদিয়া গ্রহণ করা যাবে। আর যদি তার অধিকাংশ উপার্জন হালাল না হয়ে থাকে তাহলে তার হাদিয়া গ্রহণ করা যাবে না। (মাবসূত, সারাখসী : ১০/১৯৭; খুলাসাতুল ফাতাওয়া : ৪/৩৪৮; ফাতাওয়া খানিয়া : ৩/৪০০; আলমুহীতুল বুরহানী : ৮/৭৩)।

খ. উপর্যুক্ত ক্ষেত্রগুলোতে যাদের কাছ থেকে হাদিয়া গ্রহণ করা হারাম তাদের থেকে কেউ হাদিয়া গ্রহণ করে ফেললে তা নিজে ব্যবহার করতে পারবে না; বরং জাকাত গ্রহণের উপযুক্ত কোনো ব্যক্তিকে সদকা করে দিতে হবে। তা কোনো সামর্থ্যবানকে দেওয়া যাবে না। সামর্থ্যবান কাউকে দিলে সে যদি জানে যে, এটা হারাম তাহলে তার জন্য তা গ্রহণ করা জায়েজ হবে না। (সূরা তওবা : ৬০; রদ্দুল মুহতার : ৫/৯৮; আলআশবাহ ওয়ান নাযাইর : ৪/৫০)।প্রশ্ন : আমি একটি বাড়ির দুটি ফ্লোর ৩ বছর মেয়াদে বন্ধক নিয়ে বাড়ির মালিককে ৪০ লাখ টাকা প্রদান করতে চাই। বিনিময়ে দুই ফ্লোরের ভাড়া নিয়ে আমি লাভবান হব। মেয়াদ শেষে আমি সম্পূর্ণ টাকা ফেরত পাব। এখন আমি জানতে পারলাম, উল্লেখিত লেনদেনটি নাজায়েজ। এখন আমার জানার বিষয় হলো, আমাদের এ লেনদেনটি সহিহ করার কোনো পদ্ধতি আছে কি? জানালে উপকৃত হব।

উত্তর : প্রশ্নোক্ত পদ্ধতিতে লেনদেন করা সম্পূর্ণ নাজায়েজ। কেননা ঋণ দিয়ে বিনিময়ে গ্রহীতা থেকে কোনো ধরনের উপকার গ্রহণ করা সুদের অন্তর্ভুক্ত। তাই প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে ঋণগ্রহীতা থেকে ঋণের বিপরীতে দুটি ফ্লোর বন্ধক নিয়ে তা থেকে উপকৃত হওয়া আপনার জন্য কোনোক্রমেই জায়েজ হবে নাএক্ষেত্রে বৈধভাবে লেনদেন করতে চাইলে ঋণ ও বন্ধকি চুক্তি না করে শুরু থেকেই ভাড়া চুক্তি করতে পারেন। অর্থাৎ ফ্লোর দুটি আপনি দীর্ঘ মেয়াদের জন্য ভাড়া নেবেন এবং সমুদয় ভাড়া এককালীন অগ্রিম পরিশোধ করে দেবেন। আর দীর্ঘ মেয়াদের জন্য ভাড়া নিলে পারস্পরিক সম্মতিক্রমে স্বাভাবিক ভাড়ার চেয়ে কিছুটা কমেও চুক্তি করতে পারবেন। উল্লেখিত চুক্তিতে ফ্লোর দুটির মালিক অগ্রিম যে টাকা গ্রহণ করবে, তা যেহেতু ভাড়া হিসেবে নেবে; তাই ওই টাকা সে নিজের কাজে লাগাতে পারবে।

আর আপনিও অপেক্ষাকৃত কম ভাড়ায় ফ্লোর দুটিতে বসবাস করতে পারবেন কিংবা ফ্লোর দুটিতে উন্নয়নমূলক কোনো কা(যেমন টাইলস ফিটিংস, ডেকোরেশন ইত্যাদি) করে তা অন্যের কাছে অধিক টাকায় ভাড়া দিতে পারবেন।
অবশ্য পরবর্তী সময়ে কখনও ভাড়া চুক্তি বাতিল হলে ভাড়াদাতার জন্য হিসাব করে অবশিষ্ট মাসগুলোর অগ্রিম ভাড়া ভাড়াগ্রহীতাকে ফিরিয়ে দেওয়া আবশ্যক হবে। (মুসান্নাফে আবদুর রাযযাক : ১৫০৭১; বাদায়েউস সানায়ে : ৫/২১২; শরহু মুখতাসারিত তহাবী : ৩/১৪৯; মুসান্নাফে ইবনে আবী শাইবা : ২৩৭৬০; কিতাবুল আছল : ৩/৪৬৩; আলমুহীতুল বুরহানী : ১১/২৬৮; আলবাহরুর রায়েক : ৭/২০৪; আদ্দুররুল মুখতার : ৬/২৮; বুহুস ফী কাযায়া ফিকহিয়্যাহ মুআসিরা : ১/১০৯)। 

 

আমার বাংলা নিউজ ডেক্স/ অক্টোবর ০৭ /২০১৮

 

About amarbangla

amarbanglanews

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *